২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ মঙ্গলবার || ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম:
বন্ধ হচ্ছে করোনা লাইভ বুলেটিন, তথ্য মিলবে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ১২ দিনেও সন্ধান মেলেনি স্বর্ণ ব্যবসায়ীর টাঙ্গাইল এর বিশেষ অভিযানে ০৬ (ছয়) বোতল বিদেশী মদ উদ্ধারসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ভেঙে পড়লো টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার কাশিল ইউনিয়নের দাপনাজোর ব্রিজ টাঙ্গাইলে ডাক্তার পরিচয়ে রোগী দেখেন ক্লিনিক মালিক ধরা পড়লো বহুল আলোচিত মধুপুরের চার হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী সাগর আজ দেশের ৯ অঞ্চলে ঝড়বৃষ্টি হতে পারে বাড়ছে পেঁয়াজের ঝাঁজ ম্যানসিটিকে হারিয়ে ফাইনালে আর্সেনাল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে টাঙ্গাইল শহর রক্ষা বাঁধ পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগ এসপির বিরুদ্ধে টাঙ্গাইলে চিকিৎসক-শিক্ষার্থীসহ আরও ১৪ জন করোনায় আক্রান্ত একই পরিবারের ৪ জনকে গলাকেটে হত্যা, আটক ৩ ব্রিজ ভেঙে সিমেন্টবোঝাই ট্রাক বিলে, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন লাল বাদশার দাম ৮ লাখ টাকা করোনায় আক্রান্ত এমপি জোয়াহের ঘরকে ঠান্ডা রাখার কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি বিনামূল্যে ফেসবুক ব্যবহারের প্যাকেজে বিটিআরসির নিষেধাজ্ঞা টাঙ্গাইলে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে বৃক্ষের চারা রোপণ কর্মসূচি কার্যক্রমের উদ্বোধন গলার কাঁটা ৩শ ফুট মির্জাপুরের বংশাই রোড
 

মৃতদেহে কী করোনাভাইরাস থাকে?

করোনাভাইরাসের লক্ষণ উপসর্গ নিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে।  স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব,  রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) দাবি করছে লক্ষণ উপসর্গ নিয়ে যারা মারা গেছেন তাদের মধ্যে করোনাভাইরাস ছিল না।

বিষয়টি নিয়ে জনমনেও প্রশ্ন উঠেছে। তবে আইইডিসিআর বলছে, মানুষ মারা গেলেও তার নাকে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি থাকে। এছাড়া মৃতদেহের শরীরে ৪ ঘণ্টা পর্যন্ত করোনাভাইরাস থাকে। তবে তাপমাত্রার উপর ভিত্তি করে কোনো কোনো শরীরে কম অথবা বেশি সময় ভাইরাসের উপস্থিতি থাকতে পারে।

বুধবার (০১ এপ্রিল) আইইডিসিআরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে ভাইরোলজিস্ট ডা. খন্দকার মাহফুজা জামিল বলেন, ভাইরাসটি জীবিত মানুষ বা প্রাণীর মধ্যে থাকতে পারে। মৃতদেহে ভাইরাসটি অবজেক্টে যেমন থাকে তেমনই থাকবে। এটা ডিপেন্ড করবে টেম্পারেচারের ওপর। আমরা এখন ধরে নিচ্ছি দুই থেকে তিন চার ঘণ্টা সময়।  স্পেসিফিকালি ডিটারমাইন করে বলা যাবে না এটা আসলে কত ঘণ্টা। এজন্য আমরা মৃতদেহ থেকে দুই থেকে চার ঘণ্টার মধ্যে স্যাম্পল কালেকশন করি। তবে বলা প্রয়োজন, ওই ব্যক্তি যদি ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে থাকে তাহলে এই ভাইরাসটি তার নাকের মধ্যে থাকবে। এক্ষেত্রে সে মৃত হোক বা জীবিত হোক। ভাইরাসটি মৃত হয়ে গেলেও পিসিআর করে সেটি শনাক্ত করতে পারব।

কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, পিসিআর পদ্ধতিতে যে টেস্ট করা হয় সেখানে ভাইরাসের আইডি ডিটেক্ট করা হয়, জীবিত ভাইরাসকে নয়। যদি মৃত ব্যক্তির মধ্যে সত্যি সত্যি আক্রান্ত হয় থাকে তাহলে তার স্যাম্পলে ভাইরাস থাকার কথা।

মন্তব্য করুন: